সারাদেশ

ইকো ট্যুরিজমে লাভবান হবে সকলে

মোঃ দেলোয়ার হোসেন।

প্রকাশিত: ১৯:৩০, ৫ আগস্ট ২০২২

ইকো ট্যুরিজমে লাভবান হবে সকলে

ইকো ট্যুরিজমে লাভবান হবে সকলে

ফেসবুকের কল্যাণে ইকো ট্যুরিজম নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে আলোচনা হচ্ছে। এরফলে সাধারণ মানুষের মাঝে পরিচিতি ইকো ট্যুরিজমের ধারণা। ইকো ট্যুরিজমের আওতায় ভ্রমণ করতে আগ্রহী হচ্ছে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের কিছু অংশ ।  

সম্প্রতি ডিজিটাল পল্লী প্রকল্পের আওতায় ই-কমার্স ডেলেভপমেন্ট সেন্টার (ইডিসি) মানিকগঞ্জের ইকো ট্যুরিজিম নিয়ে একটি ভার্চুয়াল আড্ডার আয়োজন করেছে। সেখানে অংশ নিয়ে ৩ ধরণের উন্নয়ন সম্ভাবনা দেখতে পাই।

মূলত পরিবেশগত পর্যটন ই হচ্ছে ইকো ট্যুরিজম। প্রকৃতি প্রেমি ও দায়িত্বশীল পর্যটকরা গাছপালা, পশুপাখি, প্রকৃতির ঐশ্বরিক সৌন্দয্য উপভোগ করতে ভ্রমণ করে ইকো ট্যুরিজমের আওতায়। এরফলে প্রকৃতিকে খুব কাছ থেকে জানার সুযোগ পায়। বাংলাদেশের ইকো ট্যুরিজম ধারণা জনপ্রিয় করতে সরকার বিভিন্ন সময়ে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। তন্মধ্যে অন্যমত- ২০১১-১৬ সালে সরকারের বন বিভাগ দেশের ২০ জেলায় ‘বাংলাদেশের জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও ইকোট্যুরিজম উন্নয়ন’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। ২০২১ সালে ‘সুন্দরবনে পরিবেশবান্ধব ইকোট্যুরিজম সুবিধা সম্প্রসারণ ও উন্নয়ন’  প্রকল্পের আওতায় সুন্দরবনে ৪ টি ইকো-ট্যুরিজম গড়ে তোলার প্রকল্প বাস্তবায়ন শুরু হয়।

অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিকাশের মাধ্যমে ইকো ট্যুরিজম সাংস্কৃতিক বৈচিত্র ও পরিবেশ সংরক্ষণে দারুণ ভূমিকা রাখে। পাহাড়-পর্বত, বন, সাগর, নদী, দ্বিপ, গ্রাম, ফলস, সংস্কৃতি, আঞ্চলিক খাবার, ইতিহাস-ঐতিহ্য সহ বিশেষ পুরানো স্থাপনা গুলো প্রাধান্য পায় ইকো ট্যুরিজমে। ডিজিটাল পল্লীর ভার্চুয়াল আড্ডা পাওয়া তিন টি ধারণার মধ্যে ভ্রমণ অন্যতম। প্রকৃতি প্রেমি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরতে যাবে সৃষ্টিকে কাছ থেকে দেখতে। তার উপভোগ করবে সৃষ্টির অপরূপ সৌন্দর্য, স্থানীয় নিদর্শন, খাবার, সংস্কৃতি ইত্যাদি।

বাণিজ্যের উৎস খুজে পাওয়ার জন্য ইকো ট্যুরিজম দারুণ ভাবে ভূমিকা রাখবে। পর্যটক যখন কোন বিশেষ অঞ্চলে ভ্রমণ করবে। সেখানে এমন অনেক কিছুই পেতে পারে, যা নিজ অঞ্চলে সহজলভ্য নয়। বেশি উৎপাদন হওয়ার কারণে দামেও সস্তা হতে পারে এবং মানের দিকেও থাকতে পারে পার্থক্য। উদাহরণ দিয়ে বলা যায়। কেউ যদি মানিকগঞ্জ বা সিলের মনিপুরী অঞ্চলে ভ্রমণ করে তাহলে তাঁতের খটখট শব্দ তাকে আকৃষ্ট করবে। যারা উদ্যোক্তা বা কাপড় বিক্রেতা তারা খুবই সহজে সেখান থেকে তাঁত পণ্যের উৎস তৈরি করতে পারবে।

ইকো ট্যুরিজমে ঘটবে অর্থনৈতিক উন্নয়। পর্যটকদের ভ্রমণের প্রায় প্রতিটি পদক্ষেপে থাকবে আঞ্চলিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন। কেউ যদি ভ্রমণ করতে চলে যায় মানিকগঞ্জে। তার যাতায়াত থেকে শুরু করে খাবার দাবার এমনি ঘুমানো পর্যন্ত সব কিছুতে অর্থ লেনদেন নিহিত থাকবে। আবার আসার সময় তাঁত পণ্য বা যা কিছুই কিনে আনুক না কেন সবকিছুতে থাকবে অর্থের বিনিময়। তার পুরোটাই গ্রহণ করবে মানিকগঞ্জের মানুষ। এতে পরিবর্তন হবে তাদের ভাগ্য।

লেখকঃ  ফ্রিল্যান্সার লেখক ইপ্রফিট ডটকম এবং আওয়ার শেরপুর ডটকম। 

সিনথিয়া

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বাধিক জনপ্রিয়