প্রশ্নোত্তর

কেমন হবে উদ্যোক্তা এবং কাস্টমারের ’ফার্স্ট ইম্প্রেশন’   

জান্নাতুল ফেরদৌস 

প্রকাশিত: ১৯:১৫, ১৭ আগস্ট ২০২২

কেমন হবে উদ্যোক্তা এবং কাস্টমারের ’ফার্স্ট ইম্প্রেশন’   

কেমন হবে উদ্যোক্তা এবং কাস্টমারের ’ফার্স্ট ইম্প্রেশন’  

একজন উদ্যোক্তা সম্পর্কে তার কাস্টমার কেমন ভাবনা মনে পোষণ করবে শুরুতে তার অনেকটা নির্ভর করে উদ্যোক্তার কাজ এবং কাস্টমারের প্রথম অনুভূতির ওপর।

একজন অপরিচিত মানুষের সাথে আমাদের যখন প্রথম দেখা হয় কিংবা কথা হয় তখন অবচেতন মন ব্যক্তিটির কার্যকলাপ,স্টাইল ইত্যাদি যাবতীয় বিষয় প্রত্যক্ষ করে তাৎক্ষণিকভাবে আমাদেরকে ঐ মানুষটার ব্যাপারে ভালোলাগা/মন্দলাগার সৃষ্টি করে।আর এটাই ফার্স্ট ইম্প্রেশন নামে পরিচিত।

তবে এটি বিভ্রান্তিকরও হয়ে থাকে।কেননা প্রথম দেখাতেই কারো সম্পর্কে ভালো কিংবা মন্দ ভাবাটা পরবর্তীতে আমাদের লজ্জার কারণও হয়ে উঠতে পারে।অনেক সময় দেখা যায় প্রথম দেখার পরে যাকে ভালো লেগেছিল,পরবর্তীতে যখন তার সম্পর্কে আমরা আরো জানছি,কাছ থেকে প্রত্যক্ষ করছি তখন হয়তো তার কাজ আমাদের আর ভালো লাগছে না।অনেককে প্রতারিতও হতে হয়।

আবার এর উল্টোটাও হয়।যাকে প্রথমবার মন্দ মনে হয়েছিল পরে তার কাজ দেখে হয়তো সবাই অনুপ্রাণিত হয়ে উঠতে শুরু করে।'ফার্স্ট ইম্প্রেশন' এর এরকম ভুলভ্রান্তি সত্ত্বেও মানুষের অবচেতন মন স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রথম অনুভূতিটাকেই সঠিক ধরে নেয়।আর এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতেও অনেক সময়ের দরকার হয়।

একজন উদ্যোক্তার জন্যও এই ফার্স্ট ইমপ্রেশনটি গুরুত্ব বহন করে।কাস্টমার আপনার পণ্য নিবে কি না তার জন্য পণ্যের ফটোগ্রাফিটা ম্যাটার করে।যেহেতু অনলাইনে হওয়ায় কাস্টমাররা সরাসরি পণ্য দেখতে পারেন না,তাই এখানে পণ্যটির সুন্দর একটি ছবিই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

এখন আপনি যদি আপনার পণ্যের ফটোগ্রাফিতে মনোযোগ না দেন কিংবা এমনভাবে ছবি তোলেন যাতে সঠিক ছবি না আসে তাহলে পণ্যটি কিনলে কাস্টমার স্বাভাবিকভাবেই প্রতারিত হবে।

এই যে প্রথম পণ্য কেনার পর পরই কাস্টমার তার কাঙ্ক্ষিত পণ্যটি হাতে পেলো না।এতে কি হবে জানেন? আপনার সাথে কাস্টমারের সম্পর্কের অবনতি হবে।যেখানে কাস্টমারের সাথে আপনার একটা ভালো সম্পর্ক থাকা জরুরী আপনার নিজের লাভের জন্য,সেখানে আপনার একটা ভুল কাস্টমার হারাতে বাধ্য করবে।

এটাই কিন্তু আপনার সাথে একজন নতুন কাস্টমারের প্রথম অনুভূতি, যা কি না পরিণত হলো নেতিবাচকতায়।উদ্যোক্তা হিসেবে আপনি কিন্তু চাইলেও সহজে আর সেই কাস্টমারটির মন পাবেন না।

যেসব উদ্যোক্তারা নিয়মিত কিশোর ক্লাসিকস সিরিজ পড়বেন,তাদের জন্য গল্পগুলো একেকটা বাস্তব অভিজ্ঞতার সমান হবে।এখানে বিভিন্ন ঘটনার সমন্বয়ে একেকটা গল্প সাজানো হয়েছে।গল্পের পরিবেশ,পরিস্থিতি, চরিত্র,ফলাফল সবকিছুই একটা থেকে আরেকটা আলাদা হয়।

একজন উদ্যোক্তাকে যেহেতু অনেক ধরনের মানুষের সাথে মিশতে হয়,তাদের জন্য কাজ করতে হয় সেক্ষেত্রে কিশোর ক্লাসিকস সিরিজ মানুষের সাইকোলজি চেনার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে সক্ষম।প্রতিটা গল্প পড়ার পরে উদ্যোক্তারা বিভিন্ন ধরনের চরিত্রের দেখা পাবেন।কোন চরিত্র কখন কি কাজ করছে,একে অপরের সম্পর্কে কি ভাবছে,একজনের সাথে অন্যজনের বাহ্যিক এবং মানসিক সম্পর্ক কেমন,মানুষ কতটা ভালো চিন্তার অধিকারী হতে পারে কিংবা কতটা খারাপ হতে পারে,সে সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করতে কিশোর ক্লাসিকস উদ্যোক্তাদেরকে সাহায্য করতে পারবে।

আর যখন উদ্যোক্তারা কাস্টমারের চাহিদা বুঝে তাদেরকে সঠিক সার্ভিসটা দিতে পারবে তখন তাদের সাথে কাস্টমারের প্রথম অনুভূতিটা হবে সুন্দর।এবং পরবর্তীতে উদ্যোক্তা যদি একইভাবে নিজের সার্ভিস এবং পণ্যের মান ধরে রাখতে পারে,তাহলে তার জন্য বিজনেস করে এগিয়ে যাওয়াটা অসম্ভব হবে না।

ই-কমার্স এসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ(ই-ক্যাব) এর প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট রাজীব আহমেদ স্যার মনে করেন উদ্যোক্তাদের জন্য সেবা প্রকাশনীর কিশোর ক্লাসিকস সিরিজ হলো "গুপ্তধন"। যারাই এই গল্পগুলো পড়বে তারা বিজনেসে কিভাবে মাথা ঠান্ডা রেখে সুপরিকল্পিতভাবে এগিয়ে যেতে হয়, কিভাবে কাস্টমার সাইকোলজি সম্পর্কে সচেতন হতে হয় ইত্যাদি বিভিন্নরকমের সাজেশন পেয়ে যাবে।যা কি না সত্যি সত্যিই উদ্যোক্তাদের কাজকে আরো বেশি সুন্দর এবং সুষ্ঠু করে তুলবে।

এইজন্যই কাস্টমার যাতে বিভ্রান্তিতে না পড়েন,তাই  উদ্যোক্তাদের পণ্যের ব্যাপারে সবরকমের সন্দেহ দূর করার চেষ্টা করতে হবে। সেই সাথে কাস্টমারদের মানসিকতা সম্পর্কে সচেতন হতে নিয়মিত কিশোর ক্লাসিকস পড়ার অভ্যাসও গড়ে তোলার দরকার আছে।

লেখকঃ ফ্রিল্যান্সার লেখক ইপ্রফিট এবং শিক্ষার্থী (মুমিনুন্নিসা সরকারি মহিলা কলেজ, ময়মনসিংহ) 

সিনথিয়া

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বাধিক জনপ্রিয়